Home » হতাশার মাঝে আশার আলো

হতাশার মাঝে আশার আলো

Advertisements In Feed
Advertisements

শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড। শিক্ষা ছাড়া কোন জাতির প্রকৃত উন্নতি কল্পনাতীত। শিক্ষাই পারে একটি জনগোষ্ঠীকে সচেতন,উমুন্নত ও আদর্শ জাতি হিসেবে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করতে। যে জাতি যতটা শিক্ষিত ততটাই উন্নত। ততটাই সচেতন। শিক্ষিত জনগোষ্ঠীর অগ্রযাত্রা কেউ ঠেকাতে পারে না। তাদের অবস্থান থাকে সর্বদা শীর্ষে। সর্ব ক্ষেত্রে। ভারতীয় মুসলিম সমাজ শিক্ষা ক্ষেত্রে অ-নে-ক অ-নে-ক পিছিয়ে। স্কুল ছুটদের সংখ্যা মুসলিম সমাজেই বেশি। নিরক্ষরতার সংখ্যাধিক্য আমাদের সমাজেই । অর্ধ শিক্ষিতদের হারে আমরাই শীর্ষে। উচ্চ শিক্ষায় মুসলিম উম্মাহর উপস্থিতি শূন্যের কোঠায়। আজকের বিশ্বায়নের যুগেও দেশের বিভিন্ন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের বহু বিভাগ মুসলিম শূন্য থাকে। এই চিত্র সত্যিই হতাশাজনক। এমন চিত্র আমাদেরকে ভাবায়। হৃদয়ে রক্তক্ষরণ ঘটায়। শিক্ষা দীক্ষায় অনাগ্রহ আমাদেরকে ক্রমশ পেছনে ঠেলছে। আমরা মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারছি না। দেশের শাসনযন্ত্রে আমাদের বিশেষ কোনো সংখ্যা পরিলক্ষিত হয় না। তাছাড়া অশিক্ষার ফলে মুসলিম সমাজে জাঁকিয়ে বসেছে বিভিন্ন অপসংস্কৃতি। অপরাধের তালিকায় নাম দেখা যায় মুসলিম যুবাদের। অশিক্ষত বেকার যুবকরা জড়িয়ে পড়ছে ধর্ম ও সমাজ বিরোধী নানা কর্মকাণ্ডে। আর এটাকে হাতিয়ার করে ইসলাম ও মুসলিম বিরোধী শিবির অপপ্রচারে শান দিচ্ছে। একের পর এক অপবাদ দিচ্ছে। আমাদের গোড়ামী আর ভণ্ডামী নিয়ে মুখ খুলছে।

এমনি এক পরিস্থিতিতে হতাশার মাঝে আশার আলোর বিকিরণ ঘটেছে। যেটা আমাদেরকে উৎসাহিত করেছে । করেছে উদ্দীপ্ত । এমন আশাবাঞ্জক সংবাদ এ জাতিকে এগিয়ে যেতে সাহায্য করবে। শপথ গ্রহণে আগ্রহী করবে। এদের দেখে অন্যরাও কিছু‌ একটা করার সংকল্প গ্রহণ করবে । ঘূণেধরা সমাজের মাঝে আশার আলো সঞ্চারিত করছে। নিরাশাকে পেছনে ঠেলে জয়ের পথ দেখিয়েছে। আর এটা হলো নাগাল্যাণ্ড ও পশ্চিমবঙ্গ উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় দুই মুসলিম ছাত্র ছাত্রীর বাজিমাত। নাগাল্যাণ্ড উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগে প্রথম স্থান অধিকার করেছে করিমগঞ্জের ওহিদুজ্জামান। অপরদিকে পশ্চিমবঙ্গ উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রথম স্থান করেছে রুমানা। পিছিয়ে পড়া এবং পেছনে ঠেলে দেয়া মুর্শিদাবাদ জেলার মেয়ে রুমানা। আমাদের সংকল্প গ্রহণের বদ্ধ দ্বার উন্মুক্ত করেছে। পিছিয়ে পড়া এলাকা থেকে রাজ্য জয়ের

Rashid Qasimi

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top